Saturday , December 3 2016
সদ্য প্রাপ্ত
Home / Slider / এখনো ধোঁয়া উড়ছে টঙ্গীর কারখানায়
প্রকাশঃ 11 Sep, 2016, Sunday 12:18 PM || অনলাইন সংস্করণ
tongi-projnmo

এখনো ধোঁয়া উড়ছে টঙ্গীর কারখানায়

প্রজন্ম ডেস্কঃ গাজীপুর মহানগরীর টঙ্গী বিসিক শিল্প নগরীতে ট্যাম্পাকো ফয়েলস লিমিটেড কারখানার বয়লার বিস্ফোরণে লাগা আগুন ২৮ ঘণ্টা পরও পুরোপুরি নেভাতে পারেননি অগ্নি নির্বাপক বাহিনীর কর্মীরা। আজ রোববার সকাল নয়টার দিকে ওই কারখানার পাঁচতলা থেকে ধোঁয়া বের হতে দেখা গেছে। এদিকে বয়লার বিস্ফোরণে দগ্ধ আরও একজন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ২৫ জনে। ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের বার্ন ইউনিটের আবাসিক চিকিৎসক পার্থ শংকর পাল জানান, আজ রোববার ভোর রাতে রিপন দাশ নামের ৩৫ বছর বয়সী এক যুবকের মৃত‌্যু হয়। তার শরীরের ৯০ শতাংশ পুড়ে গিয়েছিল। তিনি ছিলেন ওই কারখানার প্রিন্টিং অপারেটর। তার বাড়ি টাঙ্গাইলে। গতকাল শনিবার ভোরের দিকে বয়লার বিস্ফোরিত হলে পাঁচ তলা ওই কারখানা ভবনে আগুন ধরে যায়। খবর পেয়ে জয়দেবপুর, টঙ্গী, কুর্মিটোলা, সদর দপ্তর, মিরপুর ও উত্তরাসহ আশে-পাশের ফায়ার স্টেশনের ২৫ ইউনিট নেভানোর কাজ শুরু করে।

আজ রোববার সকাল ৯টার পরও তাদের তৎপরতা দেখা গেছে। ঘটনাস্থল ঘুরে দেখা যায়, ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা দলে দলে ভাগ হয়ে পুরো টাম্পাকো কারখানার চারদিক থেকে আগুন নেভানোর কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। কারখানার একপাশের অংশ এরই মধ্যে হেলে পড়েছে। তবে হেলে পড়া ভবনের ভেতর থেকে এখনও কালো ধোঁয়া বের হচ্ছে। ভবনের অপর পাশের দক্ষিণ অংশজুড়ে এখনও জ্বলছে আগুন। রোববার সকালে গাজীপুর ফায়ার সার্ভিসের উপ-সহকারী পরিচালক মো. আক্তারুজ্জামান জানান, শনিবার সারাদিন চেষ্টার পর গভীর রাতে আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। এখনও মাঝে-মধ্যে বিভিন্ন ফ্লোরে আগুনের শিখা দেখা যাচ্ছে। তবে আগুন আর ছড়ানোর সম্ভাবনা নেই। কালিয়াকৈর ফায়ার সার্ভিসের লিডার সাইফুল ইসলাম জানান, অত্যাধিক তাপ ও ধোঁয়ার কুণ্ডলীর মধ‌্যে পানি সঙ্কটের কারণেও তাদের আগুন নেভাতে দেরি হচ্ছে। ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা এখনও কারখানার ভেতরে ঢুকে কাজ শুরু করতে পারেননি। ফলে সেখানে আর কোনো লাশ রয়েছে কিনা তা জানা যায়নি। এদিকে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা তদন্তে পাঁচ সদস‌্যের কমিটি গঠন করেছে গাজীপুর জেলা প্রশাসন। কমিটিকে ১৫ দিনের মধ‌্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

নিহত শ্রমিকদের প্রত‌্যেকের পরিবারকে দুই লাখ টাকা দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী মুজিবুল হক চুন্নু। এছাড়া গাজীপুর জেলা প্রশাসন নিহতদের প্রত‌্যেকের পরিবারকে ২০ হাজার টাকা করে দিচ্ছে। উল্লেখ্য, গতকাল শনিবার সকাল ৬টার দিকে অ্যালুমনিয়াম ফয়েল তৈরির কারখানা টাম্পাকোয় বয়লার বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। বিস্ফোরণের ফলে ভবনের ভেতরে আগুন ধরে যায়। এতে ভবনের সামনের গেটে দায়িত্বরত নিরাপত্তাকর্মী, রিকশা চালক ও দুইযাত্রীসহ ১৪ জন ঘটনাস্থলেই নিহত হন। পরে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান আরও ১০ জন।

Check Also

gail

ব্যাটিংয়ে নেমে গেইল কে হারালো চিটাগং ভাইকিংস

স্পোর্টস ডেস্কঃ বিপিএলের হাইভোল্টেজ ম্যাচে মাঠের লড়াইয়ে নেমেছে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে থাকা ঢাকা ডায়নামাইটস এবং ...