Saturday , December 10 2016
সদ্য প্রাপ্ত
Home / Slider / শাহবাগে অবরোধের পর নাসিরনগর লংমার্চের ঘোষণা
প্রকাশঃ 15 Nov, 2016, Tuesday 3:52 PM || অনলাইন সংস্করণ
shahabag

শাহবাগে অবরোধের পর নাসিরনগর লংমার্চের ঘোষণা

ঢাকাঃ সাম্প্রদায়িক হামলার প্রতিবাদে ছয় দফা দাবিতে ঢাকার শাহবাগ থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগর অভিমুখে লংমার্চের ঘোষণা দিয়েছে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের কয়েকটি সংগঠন। মঙ্গলবার রাজধানীর শাহবাগে সচেতন শিক্ষার্থীবৃন্দ, সাধারণ শিক্ষার্থীবৃন্দ ও মাইনরিটি রাইটস মুভমেন্ট নামের তিন সংগঠনের ব্যানারে প্রায় ৩০০ শিক্ষার্থীর অবরোধ কর্মসূচি থেকে লংমার্চের এই ঘোষণা আসে।

তাদের অবরোধের কারণে বেলা ১১টা থেকে দেড়টা পর্যন্ত রাজধানীর গুরুত্বপূর্ণ এই মোড় হয়ে যান চলাচল বন্ধ থাকে, আশপাশের সড়কে সৃষ্টি হয় যানজট।

মাইনরিটি রাইটস মুভমেন্টের প্রদীপ চন্দ্র কর্মসূচি ঘোষণা করে বলেন, “আগামী বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে স্মারকলিপি পেশ করব আমরা। শুক্রবার সকাল ৯টায় শাহবাগ মোড় থেকে শুরু হবে আমাদের নাসিরনগর পর্যন্ত লংমার্চ। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আমাদের আন্দোলন চলবে।”

সাম্প্রদায়িক হামলার ঘটনায় মৎস‌্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রীসহ ওই এলাকার ‘নিষ্ক্রিয়’ কর্মকর্তাদের অপসারণ ও ‘দৃষ্টান্তমূলক শাস্তিসহ’ ছয় দফা দাবি জানানো হয় বিক্ষোভ সমাবেশ থেকে।

সংখ্যালঘু বিষয়ক মন্ত্রণালয় প্রতিষ্ঠা ও স্বাধীন সংখ্যালঘু কমিশন গঠন; নাসিরনগরসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে হামলায় শিকার সংখ্যালঘুদের ঘরবাড়ি ও ধর্মীয় উপসানালয় আবার নির্মাণের জন‌্য আর্থিক সহায়তা; ক্ষতিগ্রস্তদের জন‌্য আর্থিক ক্ষতিপূরণ এবং হামলায় উসকানিদাতা, মদদদাতা ও হামলাকারীদের বিচারের আওতায় এনে দ্রুত শাস্তির ব্যবস্থা করার দাবিও রয়েছে এর মধ‌্যে।

ঢাকা বিশ্ববিদ‌্যালয়ের উপাচার্য আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক বেলা সোয়া ১টার দিকে শাহবাগে অবরোধের স্থানে আসার পর তার সঙ্গে কথা বলে শিক্ষার্থীরা রাস্তা ছেড়ে দেয়।

ফেইসবুকে ইসলাম অবমাননার অভিযোগ তুলে গত ৩০ অক্টোবার ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরে ১৫টি মন্দির ভাঙা হয়; ভাংচুর-লুটপাট করা হয় হিন্দুদের শতাধিক ঘর-বাড়ি।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এবং ওসির উপস্থিতিতে সমাবেশে ‘উসকানিমূলক’ বক্তব্যের পর ওই হামলার ঘটনা ঘটায় স্থানীয় প্রশাসনের গাফিলতির অভিযোগ ওঠে বিভিন্ন মহল থেকে। এরপর ৪ নভেম্বর এবং ১৩ নভেম্বর দুই দফা হিন্দুদের বাড়ি ও মন্দিরে আগুন দেওয়ার ঘটনা ঘটে।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের অনুসন্ধানে জানা যায়, ওই হামলার নেপথ‌্যে ছিল নাসিরনগরের এমপি ছায়েদুল হকের সঙ্গে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাংসদ র আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরীর দ্বন্দ্ব।

নাসিরনগর ছাড়াও গত দুই সপ্তাহে দেশের বিভিন্ন স্থানে কয়েক ডজন মন্দিরে হামলা ও প্রতীমা ভাঙচুরের ঘটনা ঘছে, যার প্রতিবাদে ৪ নভেম্বর এক ঘণ্টা এবং ১১ মে সাত ঘণ্টা শাহবাগে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখায় সনাতন ধর্মাবলম্বীদের শিক্ষার্থী সংগঠনগুলো।-সংবাদপ্রতিদিন

Check Also

dr

শিরোপা জয়ে রাজশাহীর প্রয়োজন ১৬০ রান

র্স্পোর্টস ডেস্ক: বিপিএলের ফাইনালের মহারণে টস হেরে আগে ব্যাট করা ঢাকা ডায়নামাইটস নির্ধারিত ২০ ওভারে ...