Tuesday , December 6 2016
Home / অন্যান্য / ফেসবুকে বাবার বিরুদ্ধে অভিযোগের স্ট্যাটাস দিল আকতার জাহান এর (ছেলে) সোয়াদ!
প্রকাশঃ 27 Sep, 2016, Tuesday 11:34 PM || অনলাইন সংস্করণ
aktar-jahan-copy

ফেসবুকে বাবার বিরুদ্ধে অভিযোগের স্ট্যাটাস দিল আকতার জাহান এর (ছেলে) সোয়াদ!

ঢাকা: মায়ের মৃত্যুর ১৬ দিন পর বাবার বিরুদ্ধে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিল ছেলে আয়মান সোয়াদ আহমেদ। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক দম্পতি আকতার জাহান ও তানভীর আহমদের একমাত্র ছেলে সোয়াদ।

গতকাল সোমবার রাতে ফেসবুক স্ট্যাটাসে সোয়াদ অভিযোগ করে, মায়ের সঙ্গে মিশতে দিতে চাইতেন না বাবা। একদিন মায়ের সঙ্গে বান্ধবীর বাসায় বেড়াতে যাওয়ার প্রস্তুতি নিয়ে ঝগড়ার একপর্যায়ে বাবা তার (সোয়াদ) গলায় ছুরি ধরেছিলেন।

৯ সেপ্টেম্বর বিশ্ববিদ্যালয়ের জুবেরী ভবনের নিজ কক্ষ থেকে আকতার জাহানের লাশ উদ্ধার করা হয়। চার বছর আগে তানভীর আহমদের সঙ্গে বিচ্ছেদ হওয়ার পর আকতার জাহান ওই কক্ষে একাই থাকতেন। ওই কক্ষ থেকে উদ্ধার করা চিরকুটে আকতার জাহান লিখেছিলেন, ‘যে বাবা সন্তানের গলায় ছুরি ধরতে পারে, সে যেকোনো সময় সন্তানকে মেরে ফেলতে বা মরতে বাধ্য করতে পারে।’

ছেলের গলায় ছুরি ধরার ব্যাপারে আকতার জাহানের মৃত্যুর পরদিন তানভীর আহমদ বলেছিলেন, ‘এমন কোনো ঘটনা ঘটেনি। বিষয়টি মিথ্যা।’

সোয়াদ বলেছে, ‘স্ট্যাটাসটি আমি দিয়েছি। আমার মনে হয় এগুলো সবার জানা দরকার। তাই আমি এগুলো লিখেছি।’

ফেসবুকে ‘গলায় ছুরি ধরার’ অভিযোগের বর্ণনায় সোয়াদ লিখেছে, মায়ের সঙ্গে বান্ধবীর বাসায় বেড়াতে যাওয়ার পরিকল্পনা করেছিল সে। বাবার কাছে অনুমতি চাইতে গেলে তিনি তা নাকচ করে দেন। বাবা বলেন, মায়ের সঙ্গে নয়, তিনি ওই বাসায় দিয়ে আসবেন তাকে (সোয়াদ)। তখন সোয়াদ মায়ের সঙ্গে যাওয়ার পরিকল্পনায় বাধা দেওয়ায় রেগে যায়। বাবার কাছে জানতে চায়, কেন বাধা দিচ্ছেন। জবাবে বাবা জানান, বাবা হিসেবে এ অধিকার তাঁর আছে। সোয়াদ পাল্টা জবাব দিয়ে বলে, মায়ের সঙ্গে বেড়ানোর পরিকল্পনা নষ্ট করার কোনো অধিকার তাঁর (বাবা) নেই। সে আরও জানতে চায়, তার মা এমন কী করেছেন যে তাকে এত ক্ষতিকর মনে করছেন বাবা।

বিষয়টি ওই দিন সন্ধ্যায় আবারও বাবার কাছে তোলে সোয়াদ। মায়ের সঙ্গে বেড়ানোর পরিকল্পনা ভেস্তে দেওয়ার জন্য বিদ্রূপের সুরে বাবাকে ধন্যবাদও জানায়। বাবা রেগে গিয়ে সোয়াদকে মায়ের (আকতার জাহান) সঙ্গে তুলনা করলে সোয়াদ তাকে মায়ের সঙ্গে তুলনা করতে বাবাকে নিষেধ করেন। এ সময় বাবা তাকে মায়ের সঙ্গে কথা বলা বন্ধ করতে বলেন। সোয়াদ অভিযোগ করে, সে মায়ের সঙ্গে কথা বলা বন্ধ করবে না জানালে তার বাবা ক্ষিপ্ত হয়ে রান্নাঘর থেকে একটি বড় চাকু নিয়ে এসে তার গলায় ধরেন। এ সময় সোয়াদ বলে, মেরে ফেলতে চাইলে মারো। পরে তার বাবা চাকু ছুড়ে মাটিতে ফেলে দিয়ে কিছু না বলে নিজের কক্ষে চলে যান।

আকতার জাহানের লাশ উদ্ধারের পরদিন ময়নাতদন্তের পর তাঁর ছোট ভাই কামরুল হাসান আত্মহত্যায় প্ররোচনার অভিযোগে রাজশাহী নগরের মতিহার থানায় একটি মামলা করেন। ওই মামলায় আসামি হিসেবে কারও নাম উল্লেখ করা হয়নি।

Check Also

microsoft-selfie-app

‘মাইক্রোসফট সেলফি’ অ্যাপস আসছে অ্যানড্রয়েডে

অনলাইন ডেস্ক: সেলফি প্রেমিদের কাছে ‘সেলফি’ ছাড়া এখন যেন কোন সেলিব্রেশনই সম্পূর্ণ হয় না। স্মার্টফোনের ...