Thursday , December 8 2016
Home / Slider / জাবিতে তদন্ত কমিটির বিরুদ্ধে ছাত্রলীগ কর্মীকে বাঁচানোর পায়তারার অভিযোগ
প্রকাশঃ 06 Oct, 2016, Thursday 5:44 PM || অনলাইন সংস্করণ
JU_projonmo1

জাবিতে তদন্ত কমিটির বিরুদ্ধে ছাত্রলীগ কর্মীকে বাঁচানোর পায়তারার অভিযোগ

আরিফুল ইসলাম আরিফ, জাবি প্রতিনিধি: জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে (জাবি) গাঁজা ও ইয়াবাসহ আটক এক ছাত্রলীগ কর্মীকে বাঁচানোর চেষ্টা করছেন বলে অভিযোগ উঠেছে তদন্ত কমিটির বিরুদ্ধে।

গত ২৩ আগস্ট গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ রফিক-জব্বার হলের ৩২০ নাম্বার রুম তল্লাশি চালিয়ে গাঁজা ও ইয়াবাসহ এক ছাত্রলীগ কর্মীকে আটক করে প্রশাসন। এ ঘটনায় হলের আবাসিক শিক্ষক আ স ম ফিরোজ-উল-হাসানকে আহ্বায়ক করে ৫ সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। কমিটিকে তিন কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়। কিন্তু ঘটনার প্রায় দেড় মাস অতিবাহিত হয়ে গেলেও তদন্ত প্রতিবেদন জমা না দেয়ায় সংশ্লিষ্ট শিক্ষকদের বিরুদ্ধে তদন্তে গড়িমসির অভিযোগ উঠেছে।

আটক ওই ছাত্রলীগ কর্মীর নাম হাসেম রেজা। সে বিশ্ববিদ্যালয়ের লোক প্রশাাসন বিভাগের ৪০তম আবর্তনের শিক্ষার্থী।

অনুসন্ধানে জানা যায়, হাসেম রেজা লোক প্রশাসন বিভাগে ভালো ফলাফল করার পর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক হওয়ার জন্য ছাত্রলীগের রাজনীতিতে সক্রিয় হয়ে উঠেন। সে প্রথম বর্ষে ধুমপান না করলেও রাজনীতিতে সক্রিয় হওয়ার পর সিগারেট আর গাঁজায় আসক্ত হয়ে উঠে। এক পর্যায়ে গিয়ে সে ইয়াবা নিতে শুরু।

হলের একাধিক শিক্ষার্থী অভিযোগ করে বলেন, অভিযুক্ত ছাত্রলীগকর্মী হাশেমকে বাঁচানোর জন্য তদন্ত কমিটির প্রধান চেষ্টা চালাচ্ছেন। তাকে বাঁচানোর জন্য আশ্বস্ত করা হয়েছে বলে একটি সূত্র নিশ্চিত করেছে। এদিকে ছাত্রলীগের একটি অংশও তাকে রক্ষা করার জন্য তদবির শুরু করেছে বলে জানা গেছে।

অভিযুক্ত ছাত্রলীগ কর্মী হাসেম এ ঘটনার শুরু থেকে নিজেকে নির্দোষ দাবি করে আসছেন। তার সাথে যোগাযোগ করা হলে সে বলেন, তাকে রাজনৈতিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন করতে কোন একটা চক্র ষড়যন্ত্র করে ফাঁসানোর চেষ্ঠা করছে।

অভিযুক্ত শিক্ষার্থীকে বাঁচানোর পায়তারার বিষয়ে আ স ম ফিরোজ-উল-হাসান বলেন, “বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনো শিক্ষার্থী আমার নিকটাত্মীয় নয় যে আমি কাউকে বাঁচানোর চেষ্ঠা করবো। এখানকার সব শিক্ষার্থী আমার কাছে সমান। আমার বিরুদ্ধে আনীত এ অভিযোগ একদমই ঠিক না।

তিনি আরও বলেন, আমরা চেষ্টা করছিলাম তথ্যগুলো ঠিকঠাক সংগ্রহ করার, আর এ কারণে একটু দেরি হয়েছে। আমরা আশা করছি দু-একদিনের মধ্যে প্রতিবেদনটি চূড়ান্ত করে জমা দিয়ে দিতে পারবো।

Check Also

brt_bg2_654847924

যাত্রী-সম্পদের ক্ষতিপূরণের বিধান রেখে বিআরটি বিল পাস

বিশেষ প্রতিনিধি: বিআরটিতে ভ্রমণকারী যাত্রীদের বাধ্যতামূলক জীবন বীমা ও কোনো দুর্ঘটনায় যাত্রী ছাড়া অপর কোনো ...