Saturday , December 10 2016
সদ্য প্রাপ্ত
Home / Slider / জাতীয় সম্মেলনে হবে দৃষ্টিনন্দন শক্তির মহড়া দেখাবে আওয়ামী লীগ
প্রকাশঃ 18 Sep, 2016, Sunday 11:41 AM || অনলাইন সংস্করণ
albd-projonmo

জাতীয় সম্মেলনে হবে দৃষ্টিনন্দন শক্তির মহড়া দেখাবে আওয়ামী লীগ

প্রজন্ম ডেস্কঃ আসন্ন জাতীয় সম্মেলনে রাজধানীসহ সারা দেশে একযোগে শক্তির মহড়া দেখাবে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। আগামী ২২-২৩ অক্টোবর দলটির ২০তম জাতীয় সম্মেলন হওয়ার কথা। সম্মেলনের কিছুদিন পরই নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠনসহ আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন পদ্ধতি সংস্কারের মতো বিষয়গুলো নিয়ে আন্দোলনের ডাক দিতে পারে বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোট। এসব বিষয় মাথায় রেখেই এবারের সম্মেলনে রাজনৈতিক শক্তির মহড়া দেখানোর পরিকল্পনা রয়েছে শাসক দলটির। আওয়ামী লীগ নেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, আসন্ন সম্মেলনে দেশি-বিদেশি বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের অতিথি নেতৃবৃন্দসহ ৩৫ হাজারের মতো কাউন্সিলর ও ডেলিগেট অংশগ্রহণ করবেন। সম্মেলন উপলক্ষে রাজধানীসহ দেশের জেলা-উপজেলা শহরে সাজসজ্জা করে উৎসবমুখর ও জাঁকজমকপূর্ণ পরিবেশ তৈরি করা হবে। সম্মেলনের ভেন্যু দৃষ্টিনন্দন করতে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ব্যাপক সাজসজ্জা করা হবে। সম্মেলনের মূলমঞ্চ করা হবে আওয়ামী লীগের নির্বাচনী প্রতীক ‘নৌকা’র আদলে। আওয়ামী লীগের এক শীর্ষ নেতা আমাদের সময়কে বলেন, আগামী দিনের রাজনীতি চাঙ্গা হবে নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠনকে কেন্দ্র করে। বর্তমান কমিশনের মেয়াদ শেষ হবে আগামী ফেব্রুয়ারিতে। চলতি কমিশনের প্রতি বিএনপির নেতিবাচক মনোভাব রয়েছে।

যেহেতু পরবর্তী কমিশনের অধীনেই পরবর্তী জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে, সে কারণে বিএনপি চাইবে নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠনের সময় তাদের কিছু দাবি-দাওয়া নিয়ে মাঠে নামতে। আওয়ামী লীগের ওই নেতা আরও বলেন, আমাদের কাছে খবর আছে- নভেম্বরের শুরু থেকেই নির্বাচন কমিশন ইস্যুসহ আগামী নির্বাচন পদ্ধতি সংস্কারের দাবিতে বিএনপি মাঠে নামার চেষ্টা করতে পারে। এদিকে আমাদের সম্মেলন হচ্ছে অক্টোবরের শেষ সপ্তাহে, তাই বিএনপি যেন সুবিধা করতে না পারে, সে জন্য এবারের সম্মেলনে দেশের অসংখ্য নেতাকর্মী এবং বিদেশি শুভানুধ্যায়ীদের নিয়ে দুদিনব্যপী রাজনৈতিক মহড়া দেওয়া হবে। আশা করি, আমাদের সম্মেলনের মহড়া দেখেই বিএনপি যা বোঝার বুঝে নেবে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ বলেন, দলের আগামী জাতীয় সম্মেলনের প্রস্তুতি পুরোদমে এগোচ্ছে। আশা করি, নির্ধারিত সময়েই অত্যন্ত আড়ম্বরপূর্ণ পরিবেশের মধ্য দিয়ে সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। তিনি জানান, সম্মেলন সফল করার লক্ষ্যে গত ৬ সেপ্টেম্বর দলের নেতাদের সঙ্গে যৌথসভা করেছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সম্মেলন সর্বাত্মকভাবে সফল করতে যা-যা করণীয় সেই বিষয়ে সভায় বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। আওয়ামী লীগের এবারের সম্মেলনে বন্ধুপ্রতিম বিদেশি রাষ্ট্রগুলোর রাজনীতিবিদদের উপস্থিতির ওপর বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছে দলটি। এর মধ্য দিয়েই বহির্বিশ্বে আওয়ামী লীগের যোগাযোগের একটি চিত্র দেশবাসীর সামনে উপস্থাপনের চিন্তা রয়েছে দলটির। এ লক্ষ্যে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের অর্ধশত নেতাকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের স্বাক্ষর করা একটি আমন্ত্রণপত্র সংশ্লিষ্টদের কাছে পাঠানো হয়েছে। এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের আন্তর্জাতিকবিষয়ক উইংয়ের এক নেতা আমাদের সময়কে বলেন, উপমহাদেশের অন্যতম প্রাচীন রাজনৈতিক দল ভারতের জাতীয় কংগ্রেস, ভারতের ক্ষমতাসীন বিজেপি (ভারতীয় জনতা পার্টি), যুক্তরাজ্যের লেবার পার্টি ও কনজারভেটিভ পার্টি, যুক্তরাষ্ট্রের ডেমোক্র্যাটিক পার্টি ও রিপাবলিকান পার্টি, চিনের কমিউনিস্ট পার্টি, রাশিয়ার ইউনাইটেড রাশিয়া ও রিপাবলিকান পার্টি অব রাশিয়া, জার্মানির সোশ্যাল ডেমেক্র্যোটিক পার্টি অব জার্মানি ও ক্রিশ্চিয়ান ডেমোক্র্যাটিক ইউনিয়ন, নেপালের কমিউনিস্ট পার্টি ও নেপালি কংগ্রেস, শ্রীলংকার ইউনাইটেড ন্যাশনাল পার্টি ও আইটিএকে, জাপানের ডেমোক্র্যাটিক পার্টি ও লিবারেল ডেমোক্র্যাটিক পার্টি, অস্ট্রেলিয়ার লেবার পার্টি ও রিপাবলিক পার্টি, কানাডার কনজারভেটিভ পার্টি ও নিউ ডেমোক্র্যাটিক পার্টি, দক্ষিণ আফ্রিকার আফ্রিকান ন্যাশনাল কংগ্রেস (এএনসি) ও ডেমোক্র্যাটিক অ্যালায়েন্স প্রভৃতি দলের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে।

ব্যস্ততার কারণে তারা না আসতে পারলেও তাদের প্রতিনিধি পাঠানোর কথা উল্লেখ করা হয়েছে আমন্ত্রণপত্রে। চলতি মাসের শেষ সপ্তাহের মধ্যেই অতিথিদের চূড়ান্ত তালিকা আওয়ামী লীগের হাতে আসবে বলে জানা গেছে। আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এ বিষয়ে বলেন, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন এবং আগামী দিনের বাংলাদেশ কীভাবে পরিচালিত হবে সে বিষয়ে একটি রূপরেখা নির্ধারিত হবে আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলনে। তিনি বলেন, বাংলাদেশে আওয়ামী লীগই একমাত্র রাজনৈতিক দল, যে দলে তৃণমূল নেতাদের মতামত গুরুত্ব দিয়ে দেখা হয়। এবারের সম্মেলনেও সারা দেশ থেকে আমাদের দলের নেতাকর্মী, কাউন্সিলর, ডেলিগেটরা ঢাকায় আসবেন। তাদের মতামতের ভিত্তিতেই আওয়ামী লীগের আগামী দিনের রাজনৈতিক কৌশল চূড়ান্ত করা হবে।

Check Also

dr

শিরোপা জয়ে রাজশাহীর প্রয়োজন ১৬০ রান

র্স্পোর্টস ডেস্ক: বিপিএলের ফাইনালের মহারণে টস হেরে আগে ব্যাট করা ঢাকা ডায়নামাইটস নির্ধারিত ২০ ওভারে ...