Tuesday , December 6 2016
Home / ক্যাম্পাস / চবিতে অবরোধকারীদের ধরতে পুলিশের সাড়াশি অভিযান
প্রকাশঃ 27 Nov, 2016, Sunday 6:34 PM || অনলাইন সংস্করণ
diaf

চবিতে অবরোধকারীদের ধরতে পুলিশের সাড়াশি অভিযান

ওমর ফারুক মাসুম, চট্টগ্রাম প্রতিনিধিঃ কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক দিয়াজ ইরফান চৌধুরীকে ‘হত্যা’র প্রতিবাদে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে ছাত্রলীগের একপক্ষের ডাকা অবরোধের সমর্থনে রোববার সকালে একটি সিএনজি অটোরিকশা ও দুইটি ব্যাটারচালিত রিকশা ভাঙচুর করে আন্দোলকারীরা।

এরই প্রেক্ষিতে অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে বিশ্ববিদ্যালয়ে‍র আশপাশের এলাকায় ‘সাড়াশি অভিযান’ চালাচ্ছে পুলিশ।

রোববার (২৭ নভেম্বর) বেলা ১২টা এই অভিযান শুরু হয়। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের নির্দেশে এ অভিযান শুরু করে বলে জানা গেছে। অভিযানের বিষয়টি পুলিশ স্বীকার না করলেও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সূত্রে এ ব্যাপারে নিশ্চিত হওয়া গেছে।

বিশ্ববিদ্যালয় পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মোসাদ্দেক মিয়া বলেন, ‘সাড়াশি অভিযান না, আমরা নিয়মিত দায়িত্ব পালন করছি।’

জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয় সহকারী প্রক্টর হেলাল উদ্দিন বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ে অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে পুলিশকে এ নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তবে এখন পর্যন্ত কাউকে আটক করা যায়নি।’

কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক দিয়াজ ইরফান চৌধুরীকে ‘হত্যা’র সুষ্ঠ তদন্তসহ পাঁচ দফা দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের রোববার সকাল থেকে সাধারণ শিক্ষার্থীদের ব্যানারে আন্দোলন নামে ছাত্রলীগের একটি পক্ষ। অনির্দিষ্টকালের অবরোধের প্রথমদিন শাটল ট্রেনের হোস পাইপ কেটে দিয়ে শাটল ট্রেন চলাচল বন্ধ করে দেয় আন্দোলনকারীরা।

এর ফলে রোববার সকাল থেকে বিশ্ববিদ্যালয়গামী কোনো শাটল ট্রেনই নগর থেকে ছেড়ে যেতে পারেনি। পাশাপাশি অবরোধের সমর্থনে ক্যাম্পাসে একটি সিএনজি অটোরিকশা ও দুইটি ব্যাটারিচালিত রিকশা ভাঙচুর করেছে অবরোধকারীরা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, অবরোধের মধ্যেও বিশ্বিবিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগে ক্লাস-পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

এর আগে শনিবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে সাধারণ শিক্ষার্থীর ব্যানারে অনির্দিষ্টকালের এ অবরোধের ঘোষণা দেওয়া হয়।

আন্দোলনকারীদের পাঁচ দফা দাবিগুলো হল, দিয়াজ ইরফান চৌধূরী হত্যার সুষ্ঠু তদন্তপূর্বক আদালতের নির্দেশে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ, তদন্তের স্বার্থে প্রক্টরিয়াল বডি থেকে সহকারী প্রক্টর আনোয়ার হোসেনকে অপসারণ, সকল আসামীদের দ্রুত গ্রেফতার ও বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার, পূর্বের ময়নাতদন্ত রিপোর্ট বাতিল করে স্বচ্ছতার সঙ্গে নতুন ময়নাতদন্ত রিপোর্ট পেশ এবং শিক্ষার সুষ্ঠ পরিবেশ রক্ষার জন্য শিক্ষার্থীদের সর্বোচ্চ নিরাপত্তা নিশ্চিত করা।

গত ২০ নভেম্বর বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই নম্বর ফটক এলাকার নিজ বাসায় ঝুলন্ত অবস্থায় কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক দিয়াজ ইরফান চৌধুরীর মরদেহ পাওয়া যায়। ঘটনার দু`দিন পর ২৩ নভেম্বর তৈরি করা ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয় আত্মহত্যার ফলে শ্বাসরোধ হয়ে দিয়াজের মৃত্যু হয়েছে।

কিন্তু পরিবার এ প্রতিবেদন প্রত্যাখান করে দাবি করে আসছিল দিয়াজকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করে তার মরদেহ ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে।

Check Also

cu

চবি’র সহকারী প্রক্টর আনোয়ার-কে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি

ওমর ফারুক মাসুম, চট্টগ্রাম প্রতিনিধিঃ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সহ-সম্পাদক দিয়াজ ইরফান চৌধুরীর অস্বাভাবিকভাবে মৃত্যুবরণ করার ঘটনায় ...